দৃষ্টি আকর্ষণঃ
আমাদের ভূবনে স্বাগতম। আপনাদের সহযোগিতাই আমাদের পাথেয়।
সংবাদ শিরোনাম
পিতার স্বপ্ন ছিল শিক্ষা জাতীয়করণ কন্যার হাতে হোক বাস্তবায়ন হোমনায় ভ্রাম্যমান আদালতে ৫টি প্রতিষ্ঠানকে ৩৩ হাজার টাকা জরিমানা বাহাত্তরের ১০ জানুয়ারি এবং একাশির ১৭ মে বাঙালির ইতিহাসে দু’টি স্মরণীয় দিন হোমনায় বুদ্ধি প্রতিবন্ধিকে গণধর্ষণের অভিযোগে আটক-৪ সমাজের দুর্গন্ধটুকু এখন আর কারো নাকে লাগেনা বাংলাদেশের বর্তমান শীতল রাজনীতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মুজিববর্ষই শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণের শ্রেষ্ঠ সময় হোমনায় আওয়ামী যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক একটি যুগান্তকারী মুহূর্ত অতিক্রম করছে-শেখ হাসিনা ভারতের ‘প্রতিবেশীর অগ্রাধিকার’ নীতিতে এক নম্বর পিলার হচ্ছে বাংলাদেশ-নরেন্দ্র মোদি বেড়ায় যখন ক্ষেত খায়!
পবিত্র আশুরা আজ।। অনাগত যুগ অনুসরণীয় হয়ে থাকবে

পবিত্র আশুরা আজ।। অনাগত যুগ অনুসরণীয় হয়ে থাকবে

ছবিঃ জাগাঙ্গীর আলম জাবীর

গাজী মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম জাবির।। আজ ১০ মহররম রবিবার পবিত্র আশুরা। হিজরি সালের মর্যাদাপূর্ণ মহররম মাসের ১০ তারিখ এ পবিত্র আশুরা। ঐতিহাসিক ঘটনাবহুল ও ব্যাপক তাৎপর্যময় দিবস। ইসলামের ইতিহাসে আশুরা বিভিন্ন ঘটনার কারণে সমৃদ্ধ হলেও সর্বশেষ সংঘটিত কারবালার প্রান্তরে হযরত ইমাম হোসাইন( রাঃ) এর শাহাদাত দিবসের ঘটনাই সর্বাধিক উল্লেখযোগ্য শোকাবহ, মর্মস্পর্শী, হৃদয়বিদারক ও বিষাদময় ঘটনা। তবে প্রাচীনকাল থেকে আশুরা দিবসে বহু গুরুত্বপূর্ণ স্মৃতিবহ ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। যেমন, আসমান- জমিন সৃষ্টি করা, হযরত আদম (আঃ) এর পৃথিবীতে আগমন এবং তাঁর তওবা কবুল করা হয় এ দিবসে। হযরত নূহ ( আঃ) এর কিশতি মহাপ্লাবনের কবল থেকে রক্ষা, হযরত দাউদ ( আঃ) এর তওবা কবুল, হযরত মূসা ( আঃ) ফেরাউনের কবল থেকে মুক্তি এবং ফেরাউন সদলবলে নীলনদে নিমজ্জিত, হযরত ইব্রাহীম( আঃ) নমরুদের আগুন থেকে নাজাত লাভ, হযরত ইউনুস ( আঃ) মাছের পেট থেকে মুক্তি, হযরত আইয়ুব( আঃ) দুরারোগ্য ব্যাধি থেকে রক্ষা। হযরত ঈসা ( আঃ) কে ঊর্ধ্বাকাশে উঠিয়ে নেওয়ার ঘটনাও আশুরার দিনে ঘটেছিল এবং এ দিনেই কিয়ামত সংঘটিত হবে বলে বর্ণিত রয়েছে। ৬১ হিজরি সালের আশুরার দিনে ইরাকের কুফা নগরের অদূরে ফোরাত নদীর তীরবর্তী কারবালার প্রান্তরে মহানবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর প্রাণপ্রিয় দৌহিত্র হযরত ইমাম হোসাইন বিন আলী( রাঃ) বিশ্বাসঘাতক অত্যাচারি শাসক ইয়াজিদের নিষ্ঠুর বাহিনীর হাতে অবরুদ্ধ ও পরিবেষ্টিত হয়ে পরিবার-পরিজন এবং ৭২ জন সঙ্গী-সাথীসহ নির্মমভাবে শাহাদাত বরণ করেন। আধিপত্যবাদ, অন্যায় ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে তাঁর সুমহান আদর্শের জন্য আত্নত্যাগের বেদনাবিধুর ও শোকাবিহবল ঘটনার স্মরণে মুসলিম জাতি সারাবিশ্বে এদিনটিকে আশুরা দিবস হিসেবে পালন করে।
পৃথিবীর ইতিহাসে ঐতিহাসিক এবং ঘটনাবহুল ১০ মহররম হযরত ইমাম হোসাইন( রাঃ) কারবালায় প্রান্তরে অন্যায়, অবিচারের বিরূদ্ধে সত্য ও ন্যায়ের জন্য অকুতোভয় লড়াই করে শাহাদাত বরণ করেন। তিনি অসত্য, অধর্ম ও অন্যায়ের কাছে মাথানত করেননি। ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য জীবন বাজি রেখে সপরিবারে প্রাণ বিসর্জন দিয়েছেন। ইসলামের সুমহান আদর্শকে সমুন্নত রাখার জন্য তাঁর এ বিশাল আত্নত্যাগ ইতিহাসে সমুজ্জ্বল হয়ে আছে এবং থাকবে । অন্যায়- অবিচারের বিরুদ্ধে রুখে; সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্টায় আশুরার মহান শিক্ষা জাতীয় জীবনে প্রতিফলন ঘটানো আমাদের উচিত। হযরত ইমাম হোসাইন ( রাঃ) জীবন উৎসর্গ করেছেন- তবু, ন্যায়নীতির প্রশ্নে আপস করেননি। খিলাফতকে রাজতন্ত্র ও স্বৈরতন্ত্রে রুপান্তরে ইয়াজিদের ক্ষমতা দখলের চক্রান্তের প্রতি আনুগত্য স্বীকার না করে তিনি প্রত্যক্ষ সংগ্রামে অবর্তীন হয়ে কারবালা প্রান্তরে সত্য ও ন্যায়কে চির উন্নত ও সুপ্রতিষ্ঠিত করার জন্য সর্বোচ্চ ত্যাগের অতুলনীয় আদর্শ স্থাপন করেছেন।
মুসলিম জগতে ঐতিহ্যমন্ডিত আশুরার দিবসকে অত্যাচারি ইয়াজিদ হত্যা করে পবিত্রতাকে কলুষিত করতে চেয়েছে। কিন্তু পাষাণ হৃদয় সীমারের খঞ্জর হযরত ইমাম হোসাইন ( রাঃ) এর শিরশ্ছেদ করলেও মানুষের মহত্ত্ব, উদারতা, মহানুভবতা এবং পবিত্র ধ্যান-ধারণাকে হত্যা করতে পারেনি। কারবালার নৃশংস বর্বরতম হত্যাকান্ড ক্ষমতালোভী ইয়াজিদের উন্মত্ততার পর শত শত বছর অতিক্রম হয়েছে, কিন্তু এ বিয়োগ বেদনা মুসলমানদের শুধুই শোকে মুহ্যমান করে না বরং সত্য ও ন্যায়ের পথে অবিচল থেকে দৃঢপ্রতিজ্ঞ করে আর অন্যায়কারীর প্রতি চরম ধিক্কার জানায়। প্রিয়নবী হযরত মুহাম্মদ মোস্তফা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর দৌহিত্র হযরত আলী ও মা ফাতেমা ( রাঃ) এর প্রাণাধিক হযরত ইমাম হোসাইন ( রাঃ) কোরবানী তথা ন্যায়ের জন্য সর্বোচ্চ ত্যাগ, সত্যের পথে লড়াই করে শাহাদাতের অপূর্ব দৃষ্টান্ত অনাগত যুগ-যুগান্তর অনুসরণীয় আদর্শ হয়ে থাকবে। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হচ্ছে, “আর যারা আল্লাহর পথে নিহত হয়, তাদেরকে তোমরা মৃত বলো না, বরং তারা জীবিত কিন্তু তোমরা তা বুঝতে পারো না।” ( সূরা আল- বাকারা, আয়াত-১৫৪)।
১০ মহররম চিরকাল বিশ্বের নির্যাতিত, অবহেলিত এবং বঞ্চিত মানুষের প্রতি অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী ও সোচ্চার হওয়ার অনুপ্রেরণা জোগাবে। পৃথিবীতে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায় হযরত ইমাম হোসাইন ( রাঃ) এর শাহাদাত এক অনন্য, অনুসরণীয় ও অনুকরণীয় উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে আছে এবং থাকবে। কারবালার ট্র্যাজেডির বদৌলতেই ইসলাম স্বমহিমায় পুনরুজ্জীবিত হয়েছে। তাই যথার্থই বলা হয়েছে, ” ইসলাম জিন্দা হোতা হ্যায় হর কারবালা কী বাদ” – ইসলাম জীবিত হয় প্রতি কারবালার পর।
অপরদিকে, অন্যায়কারীর সাময়িক বিজয় ইতিহাসে কোন দিনই মর্যাদা পায়নি। জালিমের প্রতি মানুষের তীব্র ঘৃণা প্রবল এবং সত্য ও ন্যায়ের জন্য শাহাদাতবরণকারী হযরত ইমাম হোসাইন ( রাঃ) ও ইতিপূর্বে বিষ প্রয়োগে শাহাদাতবরনকারী হযরত ইমাম হাসান( রাঃ) এর প্রতি মানুষের অপার শ্রদ্ধা-ভক্তি এ দিন অপরিসীম পরিলক্ষিত হয়। সত্যের জন্য শাহাদাতবরণের এ অনন্য দৃষ্টান্ত সব আনুষ্ঠানিকতার গন্ডি ছাড়িয়ে এর অন্তর্গত ত্যাগ- তিতিক্ষার মাহাত্ম্য তুলে ধরার মধ্যেই নিহিত রয়েছে ১০ মহররমের ঐতিহাসিক তাৎপর্য। কারবালা ছিল অসত্যের বিরুদ্ধে সত্যের ও রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে সাধারণতন্ত্রের সংগ্রাম। হযরত ইমাম হোসাইন ( রাঃ) শিখিয়ে গেলেন স্বৈরতন্ত্রের সঙ্গে আপস করা চলে না। জীবনের চেয়ে সত্যের জন্য নবী- দৌহিত্রের অভূতপূর্ব আত্নত্যাগ পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল ঘটনা ঐদিন সত্যের বিজয় হয়েছিল এবং বাতিলের পরাজয় ঘটেছিল। সুতরাং আশুরার দিনে শুধু শোক বা মাতম নয়, প্রতিবাদের সংগ্রামী চেতনা নিয়ে হোক সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য আজীবন লড়াই, প্রয়োজনে আত্নত্যাগ- এটাই মহররমের অন্তর্নিহিত শিক্ষা। আশুরা দিবসে কারবালার মহান ত্যাগের শিক্ষা, অন্যায়ের প্রতিবাদ করার অনুপ্রেরণা গ্রহণ এবং এর গুরুত্ব, মাহাত্ম্য ও তাৎপর্য গভীর হৃদয়ে অনুধাবন করা সারা বিশ্বের প্রতিটি মুসলমানের জন্য বর্তমান প্রেক্ষাপটে সময়ের দাবি। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ভাষায়, ” ফিরে এলো আজ সেই মহররম মাহিনা/ ত্যাগ চাই, মর্সিয়া ক্রন্দন চাহি না”। আসুন, আমরা সকলে মিলে কারবালার সুমহান নীতি, আদর্শ ও চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে অন্যায়- অবিচার, জুলুম- নির্যাতনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াই।
লেখকঃ গাজী মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম জাবির, সাংবাদিক, কবি ও কলামিস্ট, ই- মেইলঃjahangirjabir5@ gmail.com

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2019 www.kalpurushnet.com